মেয়র আনিসুল বনানী কবরস্থানে মায়ের পাশেই শায়িত হবেন

বরিশাল নিউজ ডেস্ক।। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আনিসুল হককে তার মায়ের কবরের পাশেই দাফন করা হবে।
মেয়র আনিসুল বনানী কবরস্থানে মায়ের পাশেই শায়িত হবেন শনিবার বিকালে তার মরদেহ বনানী কবরস্থানে তার মা, শাশুড়ি ও ছোট ছেলে শারাফুল হকের কবরের পাশেই দাফন করা হবে বলে জানিয়েছেন ডিএনসিসির প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা এ এস এম মামুন। এদিকে মেয়র আনিসুল হক স্মরণে শুক্রবার ডিএনসিসির নগর ভবনসহ পাঁচটি অঞ্চলে একযোগে শোক বই খোলা হয়েছে। ডিএনসিসি শুক্রবার থেকে আগামীকাল রবিবার পর্যন্ত তিন দিনের শোক ঘোষণা করেছে।
মেয়রের মৃত্যুতে আগামীকাল রবিবার ডিএনসিসি কর্তৃপক্ষ এক দিনের ছুটি ঘোষণা করেছে। এই দিন ডিএনসিসির প্রধান দপ্তরসহ সব শাখা অফিস বন্ধ থাকবে।

আজ শনিবার বেলা ১১টা ২০ মিনিটে মেয়রের মরদেহ হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বাংলাদেশ বিমানের ফ্লাইট নং বিজি
০০২ যোগে ঢাকায় আনা হবে। সেখানে তার ছোট ভাই সেনাপ্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক, আত্মীয়-স্বজন ও ডিএনসিসির কর্মকর্তারা মেয়রের মরদেহ গ্রহণ করবেন। বিমানবন্দর থেকে মরদেহ বনানীর বাসভবনে নেয়া হবে। সেখান থেকে বিকাল
৩টা থেকে সর্বসাধারণকে শ্রদ্ধা জানানোর সুযোগ করে দিতে মেয়রের মরদেহ আর্মি স্টেডিয়ামে রাখা হবে। বাদ আসর সেখানেই তার জানাজা অনুষ্ঠিত হবে এবং জানাজা শেষে তাকে বনানী কবরস্থানে মায়ের কবরের পাশেই দাফন করা হবে।

এর আগে শুক্রবার জুমার পর লন্ডনের রিজেন্ট পার্ক জামে মসজিদে মেয়র আনিসুল হকের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয় ।

উল্লেখ্য, মেয়র আনিসুল হক নাতির জন্ম উপলক্ষে গত ২৯ জুলাই সপরিবারে লন্ডন যান। গত ১৪ আগস্ট দেশে ফেরার কথা থাকলেও আগের দিন রাতে হঠাৎ করেই অসুস্থ হন তিনি। পরিবারের সদস্যরা তাকে লন্ডনের একটি হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিত্সকদের অধীনেই পরীক্ষা চলার সময় জ্ঞান হারান তিনি। এ সময় চিকিত্সকরা তার মস্তিষ্কের রক্তনালিতে প্রদাহজনিত (সেরিব্রাল ভাসকুলাইটিস) রোগ হয়েছে বলে জানান এবং সেখানেই তার দীর্ঘমেয়াদি চিকিত্সা চলতে থাকে।

তার শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলে গত ৩১ অক্টোবর তাকে আইসিইউ থেকে রিহ্যাবিলিটেশনে স্থানান্তর করা হয়। পরবর্তীতে গত ২৮ নভেম্বর অঅবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। ৩০ নভেম্বর লন্ডন সময় ৪টা ২৩ মিনিটে তিনি লন্ডনের ওয়েলিংটন হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুর সময় স্ত্রী রুবানা হক ও সন্তানরা তার পাশে ছিলেন।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র, নন্দিত টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব, সফল উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ী এবং মোহাম্মদী গ্রুপের চেয়ারম্যান আনিসুল হক ১৯৫২ সালে নোয়াখালী জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবার নাম শরিফুল হক। আনিসুল হকের শৈশবের বেশকিছু সময় কাটে তার নানাবাড়ি ফেনী জেলার সোনাগাজীর আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে। তিনি চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক সম্পন্ন করেন।
-ইত্তেফাক


এ বিভাগের আরো খবর...
৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে বরিশালে বিজয় উৎসব শুরু ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে বরিশালে বিজয় উৎসব শুরু
ঝালকাঠিতে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ সমাবেশ ঝালকাঠিতে ইসলামী আন্দোলনের বিক্ষোভ সমাবেশ
জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার প্রতিবাদে বরিশালে  মিছিল-সমাবেশ জেরুজালেমকে ইসরাইলের রাজধানী ঘোষণার প্রতিবাদে বরিশালে মিছিল-সমাবেশ
সালেহ্‌ হত্যার বিচারের দাবিতে বরিশালে সড়ক অবরোধ সালেহ্‌ হত্যার বিচারের দাবিতে বরিশালে সড়ক অবরোধ
নলছিটিতে পুড়ে গেছে ১৭ বসতঘর নলছিটিতে পুড়ে গেছে ১৭ বসতঘর
১ ওভারে ৭ ছক্কা! ১ ওভারে ৭ ছক্কা!
জয় দিয়ে টি-টে১০ শুরু হলো সাকিবের জয় দিয়ে টি-টে১০ শুরু হলো সাকিবের
প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের ১ দাবি প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকদের ১ দাবি
চলে গেলেন এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী চলে গেলেন এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী
বাবুগঞ্জে বীরশ্রেষ্ঠ পরিবার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ বাবুগঞ্জে বীরশ্রেষ্ঠ পরিবার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ

মেয়র আনিসুল বনানী কবরস্থানে মায়ের পাশেই শায়িত হবেন
(সংবাদটি ভালো লাগলে কিংবা গুরুত্ত্বপূর্ণ মনে হলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন।)
tweet

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)