আসছে উইন্ডোজ ১০

,

উইন্ডোজ-১০দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে নতুন উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ঘোষণা করল মাইক্রোসফট । এক বিশেষ প্রেস ইভেন্টে ‘উইন্ডোজ ১০’ উন্মোচন করেছে সফটওয়্যার জায়ান্ট। যদিও বছরখানেক আগে থেকেই বিভিন্ন ফাঁস হওয়া তথ্যে ‘উইন্ডোজ ৯’ নামটি শোনা যাচ্ছিল, তবে শেষ পর্যন্ত সবাইকে অবাক করে দিয়ে ‘উইন্ডোজ টেন’ প্রকাশ করল কোম্পানিটি।
সুতরাং উইন্ডোজ ৮ এর পর ‘৯’ সংস্করণ না এনে সরাসরি উইন্ডোজ ১০ লঞ্চ করছে মাইক্রোসফট । এর কোডনেম ছিল ‘থ্রেশোল্ড’। মাইক্রোসফটের অপারেটিং সিস্টেম বিভাগের এক্সিকিউটিভ ভাইস প্রেসিডেন্ট টেরি মেয়ারসন বলেন, বিশ্বের ১.৫ বিলিয়ন লোক এখন উইন্ডোজ ব্যবহার করছেন। ওএস’টি এখন এমন এক পর্যায়ে রয়েছে, যে একে উইন্ডোজ
৯ না বলে উইন্ডোজ ১০ বলাটাই অধিকতর যুক্তিযুক্ত হবে।
উইন্ডোজ ১০ এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে, এই অপারেটিং সিস্টেম সকল ডিভাইসে চলবে। অর্থাৎ, এটি আপনার কম্পিউটার, ট্যাবলেট, স্মার্টফোন এবং অন্যান্য স্মার্ট গেজেটে চলার উপযোগী হবে। মাইক্রোসফট বলেছে, তারা একটিমাত্র ওএস উপহার দেবে যার একটি একক অ্যাপ স্টোর থাকবে। মেয়ারসন বলেন, উইন্ডোজ ১০ আপনার সঠিক ডিভাইসের জন্য সঠিক সময়ে সঠিক অভিজ্ঞতা সরবরাহ করবে।
উইন্ডোজ ১০ এ উইন্ডোজ ৭ স্টাইলের স্টার্ট মেন্যু ফিরে আসছে। তবে এতে পাশাপাশি লাইভ টাইলসও থাকবে। এসব টাইল আপনি ইচ্ছেমত রিসাইজ করতে পারবেন। ব্রাউজার ছাড়াই সরাসরি উইন্ডোজ স্টার্ট মেন্যু থেকে ওয়েব সার্স করার সুবিধা দেবে উইন্ডোজ ১০।
নতুন এই অপারেটিং সিস্টেম সচরাচর ব্যবহৃত উইন্ডোজ সফটওয়্যার ও আধুনিক (মেট্রো স্টাইল/ইউনিভার্সাল) উইন্ডোজ অ্যাপ পাশাপাশি চালাতে পারবে। উইন্ডোজ ১০ এর টাচ মুডে উইন্ডোজ ৮ স্টাইলের টাইলস ভিত্তিক স্টার্ট মেন্যু পাওয়া যাবে। এতে আরও থাকবে নোটিফিকেশন সেন্টার, করটানা ইন্টিগ্রেশন, ভার্চুয়াল ডেস্কটপ প্রভৃতি। ২০১৫ সালের কোন এক সময়ে মুক্তি পাবে উইন্ডোজ টেন।

পাঠকের মন্তব্য


মন্তব্য প্রদান করতে লগইন করুন। আমাদের সাইটে আপনার একাউন্ট না থাকলে এখানে নিবন্ধন করুন।

পাতার শুরুতে